কৃষকের মুখে হাসি ফুটলো সেচ পাম্প চালু করায়

ঝিনাইদহ, মাগুরা,কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, জেলার ১৩ উপজেলায় গঙ্গা- কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্প শুষ্ক মৌসুমে পানি না দেয়ায় বিপাকে পড়েছিলেন কৃষকরা। তবে (৩০ জানুয়ারি) বুধবার সকাল থেকে গঙ্গা কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্পের কর্তৃপক্ষ ১শ ৯৩ কিলোমিটার মেইন ক্যানেল, ৪শ ৬৭ কিলোমিটার সেকেন্ডারি ক্যানেল, ৯শ ৯৫ কিলোমিটার টারশিয়ারি ক্যানেলের মাধ্যমে পানি সরবরাহ শুরু করেছে।

এতে শুষ্ক মৌসুমে ২ লক্ষ ৫০ হাজার কৃষক সরাসরি সেচ সুবিধা পাবেন। ফলে চলতি বোরো মৌসুমের ২৪ হাজার ৯’শ ৭০ হেক্টর জমিতে কৃষক এবার ফসল চাষ করতে পারবেন।

কৃষকরা বলেন: মেশিনের পানিতে আমরা ভুট্টা, পেঁয়াজে পানি দিতে পারছি, আমরা অনেক উপকৃত হয়েছি। আগে আমরা পানি তুলতে পারতাম না, বারতি টাকা খরচ পড়তো এখন টাকা অনেক কম খরচ হবে।

পাম্প ইনচার্জ চলতি বোরো মৌসুমে এলাকায় নিরবিচ্ছিন্ন সেচ সুবিধা দেয়ার কথা জানান।  গঙ্গা কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্প পাম্পের ইনচার্জ প্রকৌশলী সফিকুর রহমান বলেন, আমরা পাম্প চালু করতে পেরেছি এবং এই পাম্পের মাধ্যমে পানি সরবরাহ শুরু হয়ে গেছে। আশা করা হচ্ছে আগামী বোরো মৌসুমে সব এলাকায় পানি সরবরাহ করতে পারবো।

জিকে কর্তৃপক্ষের তথ্য মতে, বোরো মৌসুমে সেচ প্রকল্প এলাকায় ২ হাজার ১শ ৮৫টি হাইড্রলিক গেটের মাধ্যমে কৃষকদের সেচের পানি দেয়া হবে।

রুইজু/ফাস্টরিপোর্ট২৪

Facebook Comments